টিসিবির চার পণ্য মিলছে অনলাইনে

টেকভয়েস২৪ রিপোর্ট :: ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ই-ক্যাব) বিগত বছর বিভিন্ন সময়ে যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে সেগুলো সফলতা যে শুধু ই-কমার্স সেক্টরকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে তা নয়, বরং দেশের সার্বিক অর্থনীতিতে এর প্রভাব পড়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে আমরা এসব কাজে সহযোগিতার চেষ্টা করেছি।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) দুপুরে ‘টিসিবি সেবা সপ্তাহ-২০২১’ উপলক্ষে আয়োজিত রমজানের পণ্যসামগ্রী অনলাইনে বিক্রয় কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) উদ্যোগে এবং ই-ক্যাবের তত্ত্বাবধানে কিছু নির্বাচিত অনলাইন শপে ডাল, তেল, চিনি ও ছোলা বিক্রি কাযর্ক্রমের উদ্বোধন করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে রমজানের পণ্যসামগ্রী অনলাইনে বিক্রয় কার্যক্রমের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান মন্ত্রী। ই-কমার্স ডেলিভারি সেবায় নিয়োজিত কর্মীদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দেয়ায় তাদের প্রশংসা করেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

এই উদ্যোগের ফলে এখন থেকে ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) চারটি পণ্য সাশ্রয়ী মূল্যে পাওয়া যাবে কয়েকটি অনলাইনে। এগুলো হলো, চালডাল, যাচাই, বাকি সবজি বাজার, স্বপ্ন, কেজি ক্লিক ও ওয়ানস্টপ সুপারশপ। আর চারটি পণ্য হলো, তেল, ডাল, চিনি ও ছোলা।

গত বছরের সেপ্টেম্বর মাস থেকে শুরু হওয়া অনলাইন পেঁয়াজ বিক্রি কার্যক্রমের সফলতার ধারাবাহিকতায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয় টিসিবি সেবা সপ্তাহে এই উদ্যোগ গ্রহণ করে।

অনলাইন প্লাটফর্ম জুমে অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন ইক্যাবের পরিচালক আসিফ আহনাফ। ই-ক্যাবের প্রেসিডেন্ট শমী কায়সারের সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো. জাফর উদ্দীন ও আমদানি ও রফতানি বাণিজ্য বিভাগের অতিরিক্ত সচিব এএইচএম সফিকুজ্জামান। অনুষ্ঠানে আলোচনা করেন ডব্লিওটিও সেলের মহাপরিচালক মো. হাফিজুর রহমান ও টিসিবির পরিচালক মইনউদ্দীন আহমেদ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব বলেন, আমরা ই-ক্যাবের মাধ্যমে টিসিবির পণ্যগুলো যেমন-তেল, চিনি, ডাল ও ছোলা মধ্যবিত্ত ক্রেতাদের জন্য আজ থেকে অনলাইনে সাশ্রয়ী মূল্যের বিক্রির সুযোগ করে দিয়েছি। টিসিবির এই পণ্যগুলোতে সরকারের ভর্তুকি রয়েছে। আমরা আশা করবো যেসব প্রতিষ্ঠান এসব পণ্য বিক্রয়ের দায়িত্ব পাবে তারা যেন দরিদ্র এলাকাগুলো এবং মধ্যবিত্ত ক্রেতাদের প্রাধান্য দেয় এবং এক ক্রেতা বেশিপণ্য ক্রয় করতে না পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখে। এজন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয় পণ্যের দাম, ডেলিভারি চার্জ ও ক্রয়সীমা ঠিক করে দিয়েছে।

উক্ত কার্যক্রমের প্রধান নির্বাহী এবং আমদানি ও রফতানি বাণিজ্য বিভাগের অতিরিক্ত সচিব বলেন, এই উদ্যোগের ফলে বাজারের চেয়ে অনেক কম দামে পণ্য ক্রয় করতে পারবেন ক্রেতারা। তেল ১০৮ টাকা, ছোলা, চিনি ও ডাল ৫৮ টাকায় ক্রয় করতে পারবেন। যেহেতু এটাতে সরকারের সহযোগিতা রয়েছে তাই আমরা একটা নির্দিষ্ট পরিমাণই কেবল দিতে পারব।

ই-ক্যাবের প্রেসিডেন্ট শমী কায়সার বলেন, করোনাকালীন যেকোনো সমস্যায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয় দ্রুত সমাধান ও সিদ্ধান্ত দিয়েছে। বিশেষ করে পেঁয়াজের বাজার দর বাড়ার যে আশঙ্কা ছিল গত বছর সেখানে পেঁয়াজের মূল্যকে জনগণের নাগালে রাখতে ই-ক্যাব থেকে আমরা কাজ করেছি। আমাদেরকে এই কাজ করার সুযোগ করে দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও টিসিবি। আমি আশা করি, এবারো আমাদের অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানগুলো লাভহীন এই সেবা দিয়ে এই পবিত্র রমজানে এবং করোনাকালীন মানুষের পাশে থাকবে।

ই-ক্যাবের জেনারেল সেক্রেটারি মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াহেদ তমাল বলেন, আমরা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুসারে খুব যত্নসহকারে গত ৮ মাস অনলাইনে পেঁয়াজ বিক্রি কার্যক্রম তদারকি করছি। এর ফলে একদিকে যেমন পেঁয়াজের বাজারে এর প্রভাব পড়েছে অন্যদিকে জনসাধারণ সাশ্রয়ীমূল্যে পেঁয়াজ পেয়েছে। আমাদের প্রতিষ্ঠানগুলো লাভের চিন্তা না করে সর্বোচ্চ সেবা দিয়েছে। চালডাল এবং যাচাই বেশি মূল্যে বাজার থেকে পেঁয়াজ কিনে ক্রেতাদের হাতে তুলে দিয়েছে। যাচাই এবং স্বপ্ন ডেলিভারি চার্জ ছাড়াও পণ্য বিক্রি করেছে।

বাংলাদেশি অনলাইন মুদি ও খাদ্য পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান চালডাল ডটকমের প্রতিষ্ঠাতা এবং ই-ক্যাবের ডিরেক্টর জিয়া আশরাফ বলেন, গত বছরের সেপ্টেম্বর মাস থেকে পেঁয়াজ বিক্রি কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। অনলাইনে মোট বিক্রিত পেঁয়াজের ৬০ শতাংশই বিক্রি করেছে চালডাল। এবারো তার ব্যতিক্রম হবে না। প্রথমদিন পণ্য শর্টিং ও প্যাকেজিং করতে পাঠাতে সময় লাগতে পারে। কিন্তু দ্বিতীয় দিন থেকে আপনারা পণ্য যথাসময়ে পাবেন। এবারো আমরা আমাদের সেরা সেবা ক্রেতাদের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেব।

অনুষ্ঠানে আরোউপস্থিত ছিলেন রফতানি অনু বিভাগের অতিরিক্ত সচিব হাফিজুর রহমান, ই-ক্যাবের জেনারেল ম্যানেজার জাহাঙ্গীর আলম শোভন, যাচাই ডটকমের সিইও আব্দুল আজিজ, চালডালের ডিরেক্টর ইশরাত জাহান নাবিলা, স্বপ্ন ডটকমের ই-কমার্স লিড শাহেদ উল ইসলাম, ই-ক্যাবের রুরাল স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান মো. ইব্রাহিম খলিল, ব্রান্ড অ্যান্ড মার্কেটিং স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান রুহুল কুদ্দুছ ছোটন ও ই-ক্যাবের ডিজিএম মাহমুদ উর রহমান প্রমুখ।

উল্লেখ্য, পণ্যসমূহের দাম তেল ১০৮ টাকা লিটার, ছোলা, ডাল ও চিনি ৫৮ টাকা কেজি দরে অনলাইনে বিক্রি হবে। চিসিবির ট্রাক সেল থেকে এই দাম একটু বেশি ধরা হয়েছে। একজন ক্রেতা সর্বোচ্চ ৫ লিটার তেল ও অন্যান্য পণ্য ৩ কেজি করে কিনতে পারবেন। ডেলিভারী চার্জ সর্বোচ্চ ঢাকায় ৩০ টাকা, ঢাকার বাইরে ৪০ টাকা। তবে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান কোনো ডেলিভারি চার্জ নিবেনা। ঢাকায় ৩টি প্রতিষ্ঠান আজ থেকে এসব পণ্য বিক্রি করবে। যেমন চালডাল, স্বপ্ন ও ওয়ানস্টপ সুপারশপ। বাকি সবজি বাজার, যাচাই ও কেজি ক্লিক কাল থেকে পণ্য পাবে। এছাড়া সিরাজগঞ্জ ও টাঙ্গাইলের ১টি করে প্রতিষ্ঠান রয়েছে। বিগত পেয়াজ কার্যক্রমের সফলতার উপর প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্বাচন করা হয়েছে।

image_printপোস্টটি প্রিন্ট করতে ক্লিক করুন...