তরুণদের নেতৃত্বের জন্য প্রস্তুত করতে হবে

টেকভয়েস২৪ রিপোর্ট :: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, প্রথম শিল্পবিপ্লব থেকে শুরু করে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের দিকে এগোচ্ছে বিশ্ব। আগামী ১০ বছর দেখা মিলতে পারে পঞ্চম শিল্পবিপ্লবের। বৈশ্বিক এই পরিবর্তনে বিশ্বের বুকে জ্ঞানভিত্তিক সমাজ হিসেবে বাংলাদেশকে প্রতিষ্ঠিত করতে তরুণদের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য প্রস্তুত করতে হবে।

তিনি বলেন, পরিবর্তন প্রকৃতির নিয়ম। পৃথিবীর সৃষ্টি থেকে ধ্বংস পর্যন্ত পরিবর্তন হচ্ছে, পরিবর্তন হতেই থাকবে। প্রথম শিল্পবিপ্লব থেকে দ্বিতীয় শিল্পবিপ্লব, দ্বিতীয় শিল্পবিপ্লব থেকে তৃতীয় শিল্পবিপ্লব, তৃতীয় শিল্পবিপ্লব থেকে এখন চতুর্থ শিল্পবিপ্লব, আগামী ১০ বছর পর হয়তো আমরা পঞ্চম শিল্পবিপ্লবের দিকে ধাবিত হবো। তরুণরা কি এই পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেবে, নাকি এই পরিবর্তনের নেতৃত্ব দেবে?

বুধবার (৭ এপ্রিল) গ্রামীণফোন আয়োজিত ‘জিপি এক্সপ্লোরারস ২.০’ শীর্ষক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

পলক বলেন, খাপ খাইয়ে নিলে এই পরিবর্তনের সঙ্গে আমরা কোনো মতে টিকে থাকতে পারবো। আর যদি আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যে টার্গেট ২০৪১ সাল নাগাদ উন্নত বাংলাদেশ হবো, মাথাপিছু আয় হবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার, বিশ্বের বুকে জ্ঞানভিত্তিক সমাজ হিসেবে বাংলাদেশকে প্রতিষ্ঠিত করবো তাহলে সেই পরিবর্তনে শুধু খাপ খাইয়ে নিলেই চলবে না, আমাদের তরুণদেরকে সেই পরিবর্তনের নেতৃত্ব দেয়ার জন্য প্রস্তুত করতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী জানান, বাংলাদেশ এখন স্বল্পন্নোত দেশ থেকে মধ্যম আয়ের উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদাশীল রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। উন্নত অর্থনীতির দেশের মর্যাদা পেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে টার্গেটগুলো দিয়েছেন, সেগুলো শুধুমাত্র শ্রমনির্ভর অর্থনীতি, গতানুগতিক চাকরি দিয়ে হওয়া যাবে না। এর জন্য ট্রেড ডাইভারসিফেকশন এবং শিক্ষা ব্যবস্থায় পরিবর্তন দরকার। বাংলা, ইংরেজি ভাষার পাশাপাশি কম্পিউটারের ভাষা কোডিং, প্রোগ্রামিং শিক্ষার দিকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে জুনাইদ আহমেদ পলক গ্রামীণফোনের প্রতি শিক্ষামূলক কনটেন্ট সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়ার আহ্বান জানালে গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান তার সঙ্গে একত্মতা প্রকাশ করেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয় আগামী দশকে দেশের সুদৃঢ় ভিত্তি তৈরিতে এবং ভবিষ্যৎ নেতৃত্বদের মধ্যে প্রতিযোগিতামূলক দক্ষতার প্রবৃদ্ধি ও লক্ষ্যের সম্ভাবনা উন্মোচনে যাত্রা শুরু করলো গ্রামীণফোনের ‘জিপি এক্সপ্লোরারস ২.০’।

দেশের প্রতি অবদান রাখতে এবং সম্ভাবনা তৈরিতে ১২ সপ্তাহব্যাপী এ আপস্কিলিং প্রোগ্রাম গ্রামীণফোনের দায়িত্বশীল ব্যবসায়িক অনুশীলনীরই অংশ। এ বছর জিপি এক্সপ্লোরার ২.০ -তে অংশগ্রহণকারী ও মেন্টরদের মধ্যে ভার্চুয়াল ও রিয়েল টাইম এনগেজমেন্ট অনুষ্ঠিত হবে, যার মূল লক্ষ্য থাকবে অংশগ্রহণকারীদের যোগাযোগে দক্ষতা, উদ্যোক্তা বিষয়ক দক্ষতা এবং ডিজিটাল দক্ষতা বৃদ্ধি করা।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গ্রামীণফোনের চিফ ডিজিটাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজি অফিসার সোলায়মান আলম, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো বাংলাদেশের হেড অব হিউম্যান রিসোর্সেস সাদ জসিম, গ্রামীণফোনের চিফ হিউম্যান রিসোর্সেস অফিসার সৈয়দ তানভীর হোসেন, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের হিউম্যান রিসোর্সের ইউনিট চিফ লামিয়া বুশরা।

গ্রামীণফোনের হেড অব কমিউনিকেশনস খায়রুল বাশার অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন এবং জিপি এক্সপ্লোরার কনসেপ্ট এবং কাঠামোর বিষয়ে ফারহানা ইসলাম একটি প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন। এছাড়াও, প্রথম ব্যাচের প্রাক্তন শিক্ষার্থী আফরিন আফতাব ও মাহমুদ সাকিব তাদের অভিজ্ঞতা শেয়ার করার জন্য অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

image_printপোস্টটি প্রিন্ট করতে ক্লিক করুন...