নবীনদের বরণ করল নটর ডেম ইউনিভার্সিটি

টেকভয়েস২৪ ডেস্ক :: নটর ডেম বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের নিজস্ব ক্যাম্পাসে সম্প্রতি ষোড়শ ব্যাচের নবীনবরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রাজধানীর মতিঝিলে অবস্থিত নটর ডেম ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ-এর ষোড়শ ব্যাচের নবীনবরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নটর ডেম বিশ্ববিদ্যালয়, ইন্ডিয়ানা, ইউএসএ’র ডিপার্টমেন্ট অব আর্ট’র সহযোগী অধ্যাপক ড. ফাদার মার্টিন নেগুইন, সিএসসি।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর ড. ফাদার প্যাট্রিক ড্যানিয়েল গ্যাফনি, সিএসসি (উপাচার্য), ফাদার আদম এস, পেরেরা, সিএসসি (রেজিস্ট্রার), ড. ফাদার লেনার্ড সংকর রোজারিও, সিএসসি (ডেপুটি রেজিস্ট্রার), ফাদার টম ম্যাকডরমেট, সিএসসি (ডিরেক্টর, ল্যাঙ্গুয়েজ সেন্টার), প্রফেসর ড. আলোক কুমার চক্রবর্তী, ফাদার লরেন্স নরেশ দাশ, সিএসসি (প্রক্টর), শিক্ষক মণ্ডলী, স্টাফবৃন্দ, নবীন শিক্ষার্থী এবং আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই প্রধান অতিথি সহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ আসন অংলংকৃত করেন। জাতীয় সংগীত পরিবেশন ও জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। আমন্ত্রিত অতিথিসহ শিক্ষার্থীদের নটর ডেম পরিবারে ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়া হয়।

শুভেচ্ছা বক্তব্যে উপাচার্য প্রফেসর ড. ফাদার প্যাট্রিক সকলকে নটর ডেম পরিবারে স্বাগত জানান এবং এই বিশ্ববিদ্যালয়ের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য তুলে ধরেন।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, একজন শিক্ষার্থীর বেস্ট টিচার সে নিজে। সে চাইলেই বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে বিভিন্ন সময়ে লাইব্রেরি ও ল্যাবে অবস্থান করে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বলতে হয় না তোমরা পড়। কারণ শিক্ষার্থীরা পড়াশোনা সম্পর্কে সচেতন।

রেজিস্ট্রার ফাদার আদম এস, পেরেরা, সিএসসি নটর ডেম পরিবারের সকলকে নবীন শিক্ষার্থীদের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন।

নটর ডেম বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থী নুজাইমা নূর পাফিন বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় নবীন শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, তোমরা যারা এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়েছ তোমরা সৌভাগ্যবান। তোমাদের সকলকে আদর্শ মানুষ হয়ে গড়ে উঠতে হবে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর থেকে অদ্যাবধি বিশ্ববিদ্যালয়ের সকলের সহযোগিতা পেয়েছি। এখানে সকলে সেবা ও সহযোগিতার মনোভাব নিয়ে চলাফেরা করে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজেদের সুপ্ত প্রতিভা বিকাশের জন্য ৮টি ক্লাব রয়েছে। আশা করি তোমরা তোমাদের প্রতিভা ক্লাবের মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলতে পারবে। নটর ডেম যে জ্ঞানের প্রচেষ্টা তোমাদের অন্তরে জ্বালাতে চেষ্টা করছে সেটা তোমরা অনুধাবন কর এবং তা পৃথিবীময় ছড়িয়ে দাও।

নবীন শিক্ষার্থীদের পক্ষে তাসদিকুর রহমান আনন্দময় অনুভূতি ব্যক্ত করে বলেন, মিশনারী প্রতিষ্ঠান থেকেই তার শিক্ষা জীবনের হাতেখড়ি। বাংলাদেশে শিক্ষাক্ষেত্রে মিশনারীদের অবদান অনস্বীকার্য। নটর ডেমও মিশনারীদের দ্বারা পরিচালিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তাই উচ্চ শিক্ষার জন্য তিনি এই বিশ্ববিদ্যালয়কে বেছে নিয়েছেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. ফাদার মার্টিন নেগুইন বলেন, আমরা শুধু জ্ঞান ও তথ্য জানার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হই না। বর্তমান ডিজিটাল প্রযুক্তির যুগে তথ্যগুলো এতটাই মানুষের নখদর্পণে চলে এসেছে যে, তারা এখন প্রয়োজনের চেয়ে অধিক ব্যবহার করে। বিশ্ববিদ্যালয় আমাদের গঠন, রূপান্তর ও পরিবর্তন ঘটায়। আমাদের সকলের দায়িত্ব শান্তি ও সম্প্রীতির জন্য বিশ্বকে পরিবর্তন করা।

প্রক্টর ফাদার লরেন্স নরেশ দাশ নবীন শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম-কানুন অবহিত করে বলেন, শিক্ষার মানদণ্ড দিয়ে বিচার করলে নটর ডেম একটি সফল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। দেশ ও সমাজের জন্য নটর ডেম যা করতে পেরেছে তার মূলে রয়েছে নিয়মানুবর্তিতা।

ফাদার টম ম্যাকডরমেট তার ধন্যবাদ বক্তব্যে বলেন, নটর ডেম বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ কিছুদিন আগে তাদের প্রথম সমাবর্তন সম্পন্ন করেছে। আমরা বিশ্বাস করি এখান থেকে পাস করা শিক্ষার্থীরা দেশ ও জাতি গঠনে অনবদ্য ভূমিকা রাখবে।

নটর ডেম ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ-এর দর্শন সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘নির্দিষ্ট সময়ে, কম খরচে, নৈতিকতা ও বুদ্ধিবৃত্তিক গঠনের সঙ্গে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে মানসম্পন্ন শিক্ষা প্রদান করে তাদের প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞানার্জনে সাহায্য করাই হচ্ছে এই ইউনিভার্সিটির দর্শন’।

উল্লেখ্য, নটর ডেম ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ ২০১৩ খ্রিস্টাব্দের ২৯ এপ্রিল বাংলাদেশ সরকারের অনুমোদন লাভ করে। রাজধানীর মতিঝিলে নটর ডেম কলেজ ক্যাম্পাসের দক্ষিণে এই ইউনিভার্সিটির অস্থায়ী ভবন স্থাপিত হয়েছে। ক্যাম্পাসের আয়তন ১.২ একর। দেশের শিক্ষাঙ্গনে নটর ডেম কলেজের সুনাম দীর্ঘ দিনের। নটর ডেম কলেজের পাশাপাশি নটর ডেম ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশও দেশের শিক্ষা ক্ষেত্রে সেই সুনাম বজায় রাখবে বলে প্রত্যাশা নটর ডেম ইউনিভার্সিটির সাথে জড়িত সংশ্লিষ্ট সকলের।

image_printপোস্টটি প্রিন্ট করতে ক্লিক করুন...