বিয়ের পর ভারী গয়নাগুলো কয়বারই গায়ে জড়ানো হয়?
নিশীতা মিতু (ছবি: সংগৃহীত)

টেকভয়েস২৪ ডেস্ক :: স্বর্ণের দাম আবারও বেড়েছে৷ যেখানে পৃথিবীর কোটি কোটি মানুষ প্রয়োজনীয় আহার পাচ্ছে না, সেখানে এই খবরটা আমাকে বিচলিত করে না। খালি একটু বিরক্ত হয়ে ভাবি, স্বর্ণের দাম বাড়ানোর মতো কী হলো!

নিজেই নিজেকে উত্তর দিলাম, করোনা হোক আর যাই হোক দেশে তো বিয়ে থেমে থাকছে না। আর বিয়ে মানেই তো স্বর্ণের গয়না৷ যে যত ভরি স্বর্ণ পরিয়ে মেয়েকে বিয়ে দিতে পারে, যে যত বেশি স্বর্ণ দিয়ে বউকে ঘরে তুলতে পারে সে তত বেশি হ্যাডমদার পাবলিক!

‘‘বিয়ের পর ভারী গয়নাগুলো কয়বারই গায়ে জড়ানো হয়? ছিনতাই আর চুরির ভয়ে জীবনের বড় অংশই তারা কাটায় লকারে। অন্যের বিয়েতেও আজকাল বেশিরভাগ নারীরা গোল্ড প্লেটেড, স্টোন, কুন্দন, বিডস ইত্যাদির গয়না পরতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন৷ কেউ কেউ অবশ্য মনে করেন, বিপদের বন্ধু হলো এই স্বর্ণ৷ অভাবের দিনে স্বর্ণ বিক্রি করা যায়৷’’

আচ্ছা, বিয়েতে এই স্বর্ণ দেওয়ার প্রচলনটা শুরু কে করেছে বলতে পারেন? না মানে, ৫ ভরি, ১০ ভরি লাগবেই এমন রীতি কার তৈরি?

>> এই লেখকের লেখা আরো পড়ুন: বিয়ের প্রয়োজন হয় অবলম্বনের জন্য. . .

বিয়ের পর ভারী গয়নাগুলো কয়বারই গায়ে জড়ানো হয়? ছিনতাই আর চুরির ভয়ে জীবনের বড় অংশই তারা কাটায় লকারে। অন্যের বিয়েতেও আজকাল বেশিরভাগ নারীরা গোল্ড প্লেটেড, স্টোন, কুন্দন, বিডস ইত্যাদির গয়না পরতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন৷ কেউ কেউ অবশ্য মনে করেন, বিপদের বন্ধু হলো এই স্বর্ণ৷ অভাবের দিনে স্বর্ণ বিক্রি করা যায়৷

অথচ, বিয়েতে স্বর্ণের পরিমাণ কম দিয়ে যদি নগদ অর্থ নবদম্পতির হাতে দেওয়া হয়, যদি সেই অর্থ সঞ্চয় করা যায়, তবে বিপদের দিনে তা ভালো বন্ধুরই রূপ দেখায়৷

>> এই লেখকের লেখা আরো পড়ুন: নিশীতা মিতুর জীবন থেকে নেয়া. . .

কিন্তু না! স্বর্ণ বিয়েতে দিতেই হবে৷ না হলে আপনাদের গল্পের, গর্বের টপিকের কমতি পড়ে যাবে যে। বুক ফুলিয়ে বলতে হবে, ‘ভাবি-ই, এই নেকলেসটা আমার বিয়েতে আমার বাবা দিসিলো৷ পাক্কা ৭ ভরি ৮ আনা৷ তখন আবার সোনার দাম ছিল ভরি ৭২ হাজার৷’

বুদ্ধি আমাদের আছে ঠিকই, খালি সুবুদ্ধির অভাব৷

(নিশীতা মিতু-এর ফেসবুক পেজ থেকে. . .)

লেখক : নিশীতা মিতু, সাংবাদিক, কবি এবং নারী উদ্যোক্তা, ফাউন্ডার ও স্বত্বাধিকারী, অনলাইন প্লাটফর্ম ‘আরে বাহ’।

image_printপোস্টটি প্রিন্ট করতে ক্লিক করুন...