সমবায়ের কোটি মানুষের জন্যও প্রয়োজন প্রণোদনা
ছবি : সংগৃহীত

টেকভয়েস২৪ ডেস্ক :: নভেল করোনাভাইরাস দুর্যোগ সবচেয়ে বড়ো আঘাত হানছে অর্থনীতিতে। সারা বিশ্বে এটাই সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয়। করোনা মহামারি পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের অর্থনীতি বড়ো ধরনের ক্ষতির মুখে পড়বে-এটা সহজেই অনুমেয়।

প্রধানমন্ত্রী সম্প্রতি প্রেস ব্রিফিংয়ে ঘোষণা দিয়েছেন যে, করোনাভাইরাসের কারণে দেশের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের জন্য শিল্প, কৃষি ও খাদ্যনিরাপত্তায় জড়িত মানুষকে বিভিন্ন প্যাকেজের প্রণোদনা দেওয়া হবে।

তিনি এও বলেছেন, প্রয়োজনে উন্নয়ন প্রকল্পের বাজেট থেকে হলেও বর্তমান জরুরি পরিস্থিতির মোকাবিলা করার পাশাপাশি সরকারের প্রদত্ত সাহায্য কোনো ব্যক্তি বা মহল অবৈধভাবে তসরুফ করলে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শক্তিশালী খাত হিসেবে সমবায়কে গুরুত্ব দিয়ে সংবিধানে মালিকানার দ্বিতীয় খাত হিসেবে উল্লেখ করেছেন। যে কারণে বর্তমানে সারাদেশে সমবায় অধিদপ্তরের নিবন্ধিত সমবায় সমিতি রয়েছে ১৭৭৯৩০টি। বিভিন্ন ক্যাটাগরির সমবায়ে সদস্য সংখ্যা ১১২৪৩১০০ জন।

অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ২ শতাংশ আসছে সমবায় সেক্টর থেকে। দেশের বেশিরভাগ নিম্ন মধ্যবিত্ত ও প্রান্তিক শ্রেণির মানুষই সমবায় সমিতির সদস্য। তাই সমবায় সেক্টরকেও সরকারি প্রণোদনার আওতায় নিয়ে এসে অর্থনৈতিক উন্নয়ন সম্ভব।

কেননা বিভিন্ন সমবায় সমিতির মধ্যে রয়েছে কৃষি, মৃিশল্প, হস্তশিল্প, পোশাকশিল্প, অর্গানিক ফলদশিল্প, মধুশিল্পসহ নানা ধরনের শিল্প। সুতরাং সমবায় এমন একটি প্লাটফর্ম-যার মাধ্যমে সরকারের করোনাকালীন সংকটে প্রদেয় প্রণোদনা প্রান্তিক মানুষের কাছে পৌঁছে যাবে। তাই সমবায় সেক্টরই হতে পারে সহযোগিতার একটি গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র।

লেখক : রবীন ভাবুক, লেখক ও সাংবাদিক

image_printপোস্টটি প্রিন্ট করতে ক্লিক করুন...